Potpourri

ত্রিপুরা বিধানসভা:

রাজ্যে ভূমি ও গৃহহীন পরিবারগুলিকে ভূমি বন্দোবস্ত

Mar 15 ,2017:  গত দুটি অর্থবর্ষে রাজ্যে ৫৫৬৫টি গৃহহীন পরিবারকে এবং ভূমিও গৃহ কিছুই নে্ই এমন ২৪২৬ টি পরিবারকে যথাক্রমে ১৪২৩.৪৮ ও ৫০৩.১৫ একক ভূমি বন্দোবস্ত দেওয়া হয়েছে। আজ রাজ্য বিধানসভায় ভূমিহীনদের ভূমি বন্দোবস্ত দেওয়া সম্পর্কে বিধায়ক মজুমদার এবং বিদায়ক তপন চন্দ্র দাসের জনস্বার্থে আনা একটি নোটিশের জবাবে রাজস্বমন্ত্রী বাদল চৌধুরী এই তথ্য জানিয়েছেন।তিনি জানান, প্রতিটি তহশীল লেভেল কমিটির সমীক্ষা অনুযায়ী রাজ্যে বর্তমানে ভূমিহীন, গৃহহীন এবং উভয়হীন পরিবারের সংখ্যা মোট ১৮৯৭৬ টি। এর মধ্যে গৃহহীন পরিবারের সংখ্যা মোট ৪৮৪৯টি এবং ভূমিহীন পরিবারের সংখ্যা ৭০৫১টি। উভয়হীন (ভূমিহীন ও গৃহহীন) পরিবারের সংখ্যা ৭০৭৬টি।

ভূমিহীন, গৃহহীন এবং উভয়হীন(ভূমিহীন ও গৃহহীণ) পরিবারদের মধ্যেভূমি বন্টন করার বিষয়টি একটি চলমান প্রক্রিয়া। গত অর্থবর্ষগুলিতে এরূপ শ্রেনী ভূক্ত পরিবারদের ভূমি বন্দোবস্ত দেওয়ার বিষয়টির উপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে। রাজস্বমন্ত্রী জানান,যে সকল উপজাতি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার বনভূমিতে পরম্পরায় বসবাস করছে তাদেরকে রাজ্য সরকার কর্তৃক বনাধিকার আইন ২০০৫ ইং অনুযায়ী পাট্টা প্রদান করা হচ্ছে।  এখন পর্যন্ত বনাধিকার আইনে ১,২৪,৫৪১ ভূমিহীণ ও গৃহহীন উপজাতি পরিবারকে ১,৮৯,২০৪.১০ একক জমির পাট্টা প্রদান করা হয়েছে। এই প্রক্রিয়া এখনও জারি আছে। তিনি জানান, বি পি এল ভুক্ত গৃহহীন, উভয়হীন(ভূমিহীনও গৃহহীন) ৮২৬৬ পরিবারের মধ্যে ২৯৮২টি বি পি এল পরিবারকে ভূমি বন্দোবস্ত দেওয়া হয়েছে। বাকী পরিবারদের বন্দোবস্ত দেওয়ার প্রক্রিয়া জারী আছে। এই বি পি এল উভয়হীন পরিবারের মধ্যে ৩৯৪৯টি পরিবারের দখলে কোন খাস ভূমি নেই।

রাজস্বমন্ত্রী জানান, এই পরিবারগুলিকে ভূমি বন্দোবস্তের আওতায় আনার জন্য যে সমস্ত পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে তার মধ্যে রয়েছে প্রত্যেক তহশীল ভিত্তিক একটি তহশীল লেভেল কমিটি গঠন করা হয়েছে যাতে আর আই, কানুনগো ও তহশীল ছাড়া নির্বাচিত প্রতিনিধি যেমন প্রধান/ উপপ্রধান,চেয়ারম্যানরা রয়েছেন। এই কমিটি প্রকৃত ভূমিহীন এবং উভয়হীন পরিবার নির্বাচন করে ভূমি বন্দোবস্তের বিভাগীয় কমিটির কাছে সুপারিশ করার কাজ করেছেন। এই কমিটি খালি পড়ে থাকা খাস ভূমি এবং বি পি এল ভুক্ত পরিবারের সংখ্যা ও বে আইনি দখলদারদের চিহ্নিত করার কাজ করছেন। তিনি জানান, বিভিন্ন দপ্তরের নামে  রেকর্ড ভূক্ত জমি যা তাদের আওতার বাইরে রয়েছে তা চিহ্নিত করে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের নো-অবজেকশান সাপেক্ষে বি পিএল ভুক্ত ভূমিহীন ,গৃহহীন ও উভহীন পরিবারদের ভূমিবন্দোবস্ত প্রদানের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। জমির স্বল্পতা থাকার জন্য গ্রামাঞ্চলে সর্বোচ্চ ৩ গন্ডা ও শহরাঞ্চলে ২ গন্ডা করে বাসগৃহের জন্য ভূমি বন্দোবস্ত দেওয়া হচ্ছে। ভূমি বন্দোবস্ত দেওয়ার পর যারা্ এখনো  কোন স্কীমে ঘর পাননি তাদের রাজ্য সরকারের নিজস্ব হাউজিং স্কীমে আই এ ওয়াই ঘর দেওয়া হচ্ছে। গ্রামোন্নয়ন দপ্তরের প্রাপ্ত তথ্য অনুসারে ২০১৬ইং সালে মোট ৪৮৪৯ গৃহহীন পরিবারকে গৃহ নির্মান করে দেওয়া হয়েছে। রাজস্বমন্ত্রী বলেন, রাজ্য সরকারের মূল লক্ষ্য হচ্ছে প্রকৃত ভূমিহীন, গৃহহীন এবং উভয়হীন পরিবারদের নিদিষ্ট জমি দিয়ে স্থায়ী ঠিকানা করে দেওয়া।

Click to comment

You must be logged in to post a comment Login

Leave a Reply

To Top